১৫ কোটি বছর আগে ডাইনোসর ‘ডলি’ সর্দি-কাশিতে ভুগে মারা যায়!

আজ থেকে প্রায় ১৫ কোটি বছর আগে, বর্তমান যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ পশ্চিমের মন্টানা অঞ্চলে লম্বা গলাযুক্ত ডাইনোসর ডলি হাঁচি ও কাশি দিতে দিতে হেঁটে যাচ্ছিল। তার হাঁচির চোটে আশপাশের সব পশুপাখি ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে উঠে। সঙ্গে জ্বরও হয়েছিল বেচারা ডাইনোসরের!

না, এটি হলিউডের জুরাসিক পার্ক বা অন্য কোনো কল্পবিজ্ঞান ভিত্তিক সিনেমার দৃশ্য নয়। প্রখ্যাত মার্কিন কান্ট্রি সিঙ্গার ডলি পার্টনের নামে নাম রাখা 'ডলি' নামের ডাইনোসরের জীবাশ্ম বিশ্লেষণ করে বিজ্ঞানীরা প্রথমবারের মতো কোনো একটি ডাইনোসরের শ্বাসযন্ত্রে সংক্রমণের প্রমাণ পেয়েছেন।

গত ১০ ফেব্রুয়ারি নতুন এ গবেষণার বিস্তারিত প্রকাশিত হয়েছে সায়েন্টিফিক রিপোর্টস নামের জার্নালে, জানায় সিএনএন।

ডিপ্লোডোসিড জাতের তৃণভোজী ডাইনোসরটি তার লম্বা গলার জন্য বিশেষভাবে লক্ষণীয়, যেটি লম্বায় প্রায় ৬০ ফুট (১৮ মিটার) দীর্ঘ ছিল।

গবেষণা প্রধান ক্যারি উডরাফ জানান, মৃত্যুর সময় ডলির বয়স ছিল ১৫ থেকে ২০ বছরের মধ্যে। তিনি মন্টানার মাল্টায় অবস্থিত গ্রেট প্লেইন্স ডাইনোসর যাদুঘরের জীবাশ্ম বিজ্ঞান বিভাগের পরিচালক হিসেবে কাজ করছেন।

;

ডলির অসুস্থতার বিষয়ে জানা গেল যেভাবে

;

১৯৯০ সালে মন্টানার একটি জায়গায় ডলির জীবাশ্ম আবিষ্কৃত হয়। তার পুরো খুলি, গলা এবং মেরুদণ্ডের সঙ্গে যুক্ত কশেরুকা অবিকৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। সঙ্গে অন্যান্য ডাইনোসরের দেহাবশেষও পাওয়া যায়। তবে জীবাশ্ম পরীক্ষা করে ডলি পুরুষ না নারী ডাইনোসর ছিল, তা নিশ্চিত হতে পারেননি গবেষকরা।

মন্তব্য করুন






আর্কাইভ