জিয়া মুক্তিযোদ্ধা নয় এটি সমর্থন করা যায় না বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম

Asiful

প্রকাশ:2021-02-25 14:22:02

করোনার মহাপ্রাদুর্ভাবে দীর্ঘ এক বছর সভা-সমিতি না করে, রাস্তাঘাটে না চলে কেমন যেন অচল হয়ে পড়েছি। দেহের সব কলকব্জায় জং ধরে যাওয়ার উপক্রম। শরীরটা আগের মতো চনমনে নেই, উদ্দীপনাও নেই। তার মধ্যে আবার আমার এক উন্মাদ দেশের পাগল গত শুক্রবার কাঁচপুর ব্রিজের কাছে ট্রাকের ধাক্কায় নিহত হয়েছে। খবরটা শুনে একেবারে বেসামাল হয়ে পড়েছিলাম। বাংলাদেশ প্রতিদিনে আমার লেখা বেরোলেই সে ফোন করত, কত প্রশংসা করত, মনের মতো না হলে সমালোচনা করতেও পিছপা হতো না। ’৭৫-এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু নিহত হলে দারুণ কষ্ট করেছে। রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে জেলে ছিল অনেক দিন। জিল্লুর রহমান, তোফায়েল আহমেদ, আবদুর রাজ্জাক, লতিফ ভাই কার সঙ্গে সে

জেল খাটেনি? সেসব জেল খাটার কথা সব সময় তার ঠোঁটে থাকত। কতবার জেলের দুরবস্থা নিয়ে ব্রিটিশ-পাকিস্তানের, কারা প্রশাসনের অব্যবস্থা নিয়ে লিখতে অনুরোধ করত। জেলখানা নিয়ে লিখেছিও। কিন্তু আমার প্রিয় খোকন জসিমের জীবদ্দশায় কারা সংস্কার নিয়ে তেমন লেখা হলো না। এক মস্তবড় আফসোস থেকে গেল। আড়াইহাজারের খোকন জসিম সারা জীবন বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি করেছে। ভীষণ দরিদ্র মানুষ। দুটি মাত্র ছেলে। একজনের নাম সিরাজদ্দৌলা, অন্যজনের নাম জানি না। বড় ছেলেকে বিয়ে করানোর কথা। বিয়ে উপলক্ষে তার বাড়িতে যাওয়ার জন্য বলেছিল। আমারও ইচ্ছা ছিল একবার গরিব কর্মীটার ছেলের বিয়ে উপলক্ষে ঘুরে আসব। আচমকাই তার ছেলের কাছ থেকে খোকন জসিমের ফোন পেয়ে একেবারে মুষড়ে গিয়েছিলাম। খোকন জসিমের ফোন থেকে তার ছেলে তার মৃত্যু সংবাদ দিয়েছিল। ফোনটা সেভ করা। কোনো দিন খোকন জসিম ছাড়া কেউ সে ফোনে ফোন করেনি, শুধু তার মৃত্যু সংবাদ ছাড়া। খবরটা ঘুম থেকে উঠতে উঠতে পেয়েছিলাম তাই শূন্যতায় দেহমন ভরে ছিল। ভালো করে পত্রিকা পড়িনি। সারা দিন কোনো কাজে মন বসেনি। রাত ১০টায় এক ভদ্রলোকের ফোন পেয়েছিলাম, ‘এটা কি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর ফোন?’ বলেছিলাম, জি, বলছি। ‘আপনি কি আজকে বাংলাদেশ প্রতিদিনে বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিকের লেখা পড়েছেন?’ শিরোনাম দেখেছিলাম, লেখা পড়া হয়নি। শিরোনাম ছিল ‘জিয়া সম্পর্কে যা বলেছিলেন জেনারেল শওকত’। পরে লেখাটি পড়েছি। শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক আমাকে খুবই ভালোবাসেন। একসময় দারুণ অনুরক্ত-ভক্ত ছিলেন। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বাঙালির জীবনে জোয়ার-ভাটা তো আসেই। কঠিন দুঃখের মাঝে লেখাটি পড়ে খুব একটা হৃদয়ঙ্গম করতে পারিনি। পরে আবার পড়েছি। কয়েক পর্ব আগে সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন সম্পর্কে লিখতে গিয়েছিলাম। ঠিক সে সময় ’৭৫-এর প্রতিরোধযুদ্ধে নিহত বিডিআরের হাবিলদার মুজিবর রহমানের মেয়ে মনোয়ারা বেগম মণি এসে হাজির হয়েছিল এক চমৎকার চিঠি নিয়ে। হাতের লেখাটি ছিল আরও চমৎকার। হাতের লেখা দেখে চমকে উঠে বলেছিলাম এত সুন্দর লেখা তারপর বলছেন লেখাপড়া জানেন না। মেয়েটি বলেছিল, ‘লেখাটা আমার নয়, আমার ছেলের। আমি লেখাপড়া জানি না। আমি যা বলেছি তাই আমার ছেলে লিখেছে।’ পড়ে দেখলাম সে দশম শ্রেণি পর্যন্ত পড়েছে। টাকাপয়সার অভাবে আর পড়তে পারেনি। বঙ্গবন্ধু হত্যার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার সময় আমাদের বিরুদ্ধের একজনের মেয়ের সামনে দাঁড়াতে হয়েছিল। তাই সৈয়দ আবুল হোসেনের সঙ্গে দীর্ঘদিন পর প্রায় দেড় ঘণ্টার আলোচনার কিছু বলা হয়নি। একই মন-মানসিকতার দুজন একত্র হলে সময় কেন যেন দুরন্ত ঘোড়ার মতো ছুটে। সেদিন সৈয়দ আবুল হোসেনের সঙ্গে আমাদের সময়ও ও রকমই ছুটেছিল। একজন আরেকজনের প্রতি ভালোবাসা-শ্রদ্ধায় ভরপুর দুজন মানুষ একত্র হলে কত কথা হয়। সব কথা যেমন লেখা যায় না, অনেক কথা সময় অনুমোদন করে না। সৈয়দ আবুল হোসেন পা থেকে মাথা পর্যন্ত একজন পরিশীলিত অসাধারণ বিনয়ী মানুষ। বিনয় অনেকের সাজানো গোছানো বানানো থাকে। কিন্তু আবুল হোসেনের বিনয় শাশ্বত স্বভাবজাত। তাতে কোনো মেকি নেই। কথার ফাঁকে একসময় আলোচনায় এসেছিল বড় ভাই লতিফ সিদ্দিকী কেমন আছেন। তিনি বলছিলেন, ‘আমরা তো কনিষ্ঠ, অর্থমন্ত্রীর কথায় কথা বলতে ভয় পেতাম, কুণ্ঠা হতো। কিন্তু লতিফ ভাই অর্থমন্ত্রীর অনেক অনিয়ম ধরতেন, আলোচনা করতেন। কখনো কখনো নেত্রী লতিফ ভাইয়ের মতামতকে গুরুত্ব দিতেন। কেন, কী করে অমন হলো বুঝতে পারছি না।’ আলোচনা ছিল ২৪ জানুয়ারির পর। ২৪ জানুয়ারি টাঙ্গাইল ঐতিহাসিক অস্ত্র জমা দিবস পালিত হচ্ছিল। স্বাধীন দেশে পিতা হিসেবে, সরকারপ্রধান হিসেবে রাজধানীর বাইরে টাঙ্গাইলে প্রথম বঙ্গবন্ধু পা রেখেছিলেন। কাদেরিয়া বাহিনী তার সব অস্ত্র পিতার পায়ের তলে বিছিয়ে দিয়েছিল। সেই ২৪ জানুয়ারি অস্ত্র জমাদানের কোনো খবর পত্রপত্রিকা, ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় প্রচারিত হয়নি। দিনব্যাপী প্রচারিত হয়েছিল সাবেক মন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর অবৈধভাবে দখল করা ৬০ শতাংশ জমি প্রশাসন দখল নিয়েছে বা লতিফ সিদ্দিকীকে উচ্ছেদ করেছে। প্রসঙ্গটা আসতেই আবুল হোসেন বলেছিলেন, ‘কেন উচ্ছেদ করতে হবে? কত হাজার হাজার একর ভূমি সরকার একে ওকে ইজারা দিচ্ছে, লিজ দিচ্ছে। যেখানে ৫০ বছর একজন মানুষ আছেন তাকে ছোট করার জন্য এমনটা করার কী দরকার? লতিফ সিদ্দিকীর নাম আওয়ামী লীগের সঙ্গে, বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে এমনকি নেত্রী হাসিনার সঙ্গেও জড়িয়ে আছে।’ আমি তার বিবেচনাবোধের কথা ভাবছিলাম। কতভাবে বলার চেষ্টা করছিলেন, পদ্মা সেতুতে বিশ্বব্যাংকের অভিযোগ নিয়ে আমার নানা কথা নানা লেখায় কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছিলেন। সঙ্গে এও বলছিলেন, ‘আপনার সঙ্গে না হয় আমার পরিচয় আছে, আপনি ভালোবাসেন, স্নেহ করেন তাই আমার ওপর অবিচারের কথা না হয় আপনি তুলে ধরেছেন। কানাডার আদালতে বিশ্বব্যাংকের মামলা খারিজ হয়ে যাওয়ায় সাবেক রাষ্ট্রপতি এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, ড. কামাল হোসেন ও অন্যরা আমার মন্ত্রিত্ব ফিরিয়ে দিতে বলেছিলেন। তাদের সঙ্গে তো আমার তেমন পরিচয়ও নেই। তাই আপনাদের মতো মানুষের প্রতি শ্রদ্ধা-ভালোবাসা জানিয়ে শেষ করা যায় না।’ দেড় ঘণ্টা কীভাবে কেটে গিয়েছিল খেয়াল করিনি। বারবার বলছিলেন, ‘আপনার যখন প্রয়োজন ফোন করবেন। কোনো সময় বিবেচনা করতে হবে না।’ যখন চলে আসছিলাম লিফট পর্যন্ত দিয়ে গিয়েছিলেন। গাড়িতে বসে ভাবছিলাম, দেশে প্রশাসনে ভদ্রলোকের জায়গা নেই। সব অভদ্রদের অসম্ভব ক্ষমতা। প্রায় দেড় ঘণ্টা আলাপে একটি বিষয় বারবার আমার মনে হয়েছে আমি যেমন বঙ্গবন্ধু ছাড়া বুঝি না, সবকিছুতেই বঙ্গবন্ধু- সৈয়দ আবুল হোসেনেরও তেমনি নেত্রীর প্রতি গভীর আস্থা। সবকিছুর পর নেত্রী। নেত্রীকে নিয়ে তার মনে কোনো দ্বিধা নেই, দ্বন্দ্ব নেই। বরং তার আশপাশে কিছু মানুষের জন্য তার প্রচন্ড শঙ্কা আছে এবং সে শঙ্কার কথা আমায় বলতে পেরে পুরোপুরি হোক আর না হোক কিছুটা হালকা হয়েছেন। আমি তার কাছে গেলেই আমাকে তার লেখা বই তুলে দেন। এবারও দিয়েছেন- আমার চিঠিপত্র; প্রবচনগুচ্ছ; বঙ্গবন্ধুর ধর্মচিন্তা ও ধর্মচেতনা। সর্বোপরি কদিন আগে এক চমৎকার চিঠি দিয়েছেন। একটা চিঠি অত যত্ন করে পাঠানো যায় এও এক নতুন নজির। চিঠিটা আমার কাছে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের চিঠি কিংবা ভারতের মহামান্য রাষ্ট্রপতি শ্রী প্রণব মুখার্জি অথবা মহীয়সী নারী বাংলাদেশের ধাত্রী শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধীর মতো উচ্চতায় মনে হয়েছে। মনে হয়েছে অনেকটাই বোন হাসিনার চিঠিপত্রের মতো ভালোবাসা ও মমতা মাখা।

লেখক : রাজনীতিক।

....