ত্বকের যত্ন নিবে কমলার খোসা

কমলা উপকারী ফল সবাই জানে। কিন্তু এই ফলের খোসায় দারুণ কার্যকরী, হয়তো অনেকেই জানে না। কমলায় থাকে ভিটামিন সি ও ফাইবার। ফলে এটি শরীরের নানা উপকারে লাগে। সুস্বাদু এই ফলের খোসা আমরা সাধারণত ফেলে দেই। কিন্তু ফেলে না দিয়ে এটি ব্যবহার করা যায়। ত্বক ও চুলের যত্নে। কমলার খোসা ব্যবহারে ত্বক ও চুলের সৌন্দর্য বাড়ে অনেকটাই। চলুন জেনে নেওয়া যাক ত্বক ও চুলের যত্নে কমলার খোসার ব্যবহার-

রোদের কারণে ত্বকে সৃষ্ট ট্যানিং দূর করতে সাহায্য করে কমলার খোসা। কমলা খেলে এর খোসাগুলো সংরক্ষণ করুন। কমলার খোসা রোদে ভালো করে শুকানোর পর গুঁড়া করে নিন। এবার সেখান থেকে সামান্য গুঁড়া নিয়ে মধুর সঙ্গে মিশিয়ে নিন। এরপর মিশ্রণটি ত্বকে লাগিয়ে অপেক্ষা করুন মিনিট দশেক। শুকিয়ে এলে পরিষ্কার পানিতে ধুয়ে নিন। নিয়মিত এভাবে ব্যবহার করলে রোদে পোড়া ভাব দূর হবে।

ব্ল্যাকহেডসের সমস্যা দেখা যায় বেশিরভাগের মুখেই। এই সমস্যা নাছোড়বান্দা। একবার দেখা দিলে সহজে আর যেতে চায় না। ব্ল্যাকহেডসের সমস্যা দূর করার কাজে ব্যবহার করতে পারেন কমলার খোসা। কমলার খোসার গুঁড়া ও দই একসঙ্গে মিশিয়ে ব্ল্যাকহেডসের স্থানে লাগিয়ে নিন। এভাবে মিনিট দশেক রেখে পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। দেখবেন, ব্ল্যাক হেডসের সমস্যা দূর হয়ে গেছে।

ব্রণ নিয়ে মুশকিলে পড়েছেন? ব্রণের সমস্যা দূর করতেও সমান কার্যকরী কমলার খোসা। কমলার খোসার গুঁড়া নিয়ে তার সঙ্গে সামান্য গোলাপজল মিশিয়ে নিন। এরপর মিশ্রণটি মুখে ব্যবহার করুন। মিনিট পনেরো রেখে ধুয়ে ফেলুন। এতে ব্রণের সমস্যা থাকলে তা খুব সহজেই দূর হবে। ত্বকের দাগ দূর করতে চাইলে কমলার খোসার গুঁড়া ও মসুর ডালের পেস্ট একসঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করুন।

চুল নরম ও খুশকিমুক্ত করতে দারুণভাবে কাজ করে কমলার খোসা। সেজন্য কমলার খোসা পানিতে ফুটিয়ে সারারাত রেখে দিন। পরদিন সেই পানি ছেঁকে তা দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। এতে চুল হবে নরম ও খুশকিমুক্ত।

মন্তব্য করুন






আর্কাইভ