পদ্মা সেতুতে কড়াকড়ি, বাইক চলাচল সাময়িক বন্ধ

পদ্মা সেতু পারাপারের সময় নির্ধারিত বিধি নিষেধ পালন নিশ্চিত করতে কড়াকড়ি হয়েছেন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী। পদ্মা সেতুতে দুর্ঘটনা প্রতিরোধ ও শৃঙ্খলা নিশ্চিত করতে সেনাবাহিনী সদস্যরা নজর রাখছেন। গত সোমবার সকাল থেকে সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ। একই সাথে পায়ে হেঁটেও পারাপার বন্ধ। সেতুতে গাড়ি থামিয়ে আড্ডা-গল্প পুরোপুরি বন্ধ। সেতুর ওপরে গাড়ি চালাতে হবে পূর্বের বেঁধে দেওয়া গতিতে। কেউ যেন অনিয়ম না করে সে জন্য নিয়মিত টহল দিচ্ছে সেনাবাহিনী।

উদ্বোধনের পরদিন গত রবিবার সেতুর ওপর চিত্র যেমন ছিল, পরদিন সোমবার থেকে আজ (বুধবার) দুপুর ১২টা পর্যন্ত সেই চিত্র সম্পূর্ণ ভিন্ন। বিভিন্ন গণমাধ্যমসহ সোশ্যাল মিডিয়ায় (ফেসবুক) প্রকাশিত হওয়া ভিডিওতে গত রবিবার সেতুর ওপর রাস্তার পাশে মানুষকে আড্ডা গল্প ও দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। তবে এথন সেটা ছিল অচেনা। বলতে গেলে খালি ছিল সেতুর ওপরের রাস্তা। কেউ যাতে গাড়ি থেকে সেতুতে না নামে ও ছবি না তোলে, সেজন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করছে। ফলে গত সোমবার থেকে সেতুর ওপর গাড়ি থামিয়ে মানুষজনকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়নি। কোন ধরনের আড্ডাও দেখা যায়নি। কোথাও কেউ থামলেও কিছুক্ষণের মধ্যেই তাদের সরিয়ে দিচ্ছে। এদিন পুরো সেতুজুড়ে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যদের সক্রিয় পদচারনা ছিল।

পদ্মা সেতুতে পায়ে হাঁটা ও বাইক চলাচল নিষেধ প্রসঙ্গে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ বলেন, পদ্মা সেতুতে স্পিড গান ও সিসিটিভি স্থাপনের পর বাইক (মোটরসাইকেল) চলাচলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এ সিদ্ধান্ত অনির্দিষ্টকালীন, তা নয়। এটা এখন বন্ধ আছে, মোটরসাইকেল সম্পর্কে যেটা বলা হয়, সেখানে এখন স্পিড গান, সিসিটিভি মিটার বসানো হবে। সেগুলো সেট আপের পর হয়তো নতুন করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। পদ্মা সেতুর কারণে ফেরি চলাচল পুরোপুরি বন্ধ হয়নি। চাহিদা অনুযায়ী ফেরি চলাচল করবে।

সরেজমিনে দেখা যায়, পদ্মা সেতুর পরিবেশ স্বাভাবিক রাখতে সেতুতে মানুষের হাঁটা বন্ধ করা রাখা হয়েছে। পাশাপাশি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সেতুতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজরদারি কড়া করেছে। পারাপারের সময় পদ্মা সেতুতে না নামার জন্য টোল প্লাজা এলাকায় মাইকিং করা হচ্ছে। সেতুতে মোটরসাইকেল পারাপার নিষিদ্ধ করার পর জাজিরা প্রান্তে নাওডোবা টোল প্লাজায় শৃঙ্খলা ফিরেছে। একই সাথে মাওয়ার টোল প্লাজায় ফিরেছে শৃঙ্খলা।

গত সোমবার সকাল থেকে বুধবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত নাওডোবা প্রান্তে কোনো যানবাহনের জট নেই। মাওয়ার প্রান্তেও একই অবস্থায় দেখা যায়। এখানেও ছিল না যানবাহনের জটলা। ব্যক্তিগত গাড়ি, যাত্রীবাহী বাস, পণ্যবাহী ট্রাক সরাসরি টোল দিয়েই বাধাহীনভাবে সেতু পার হতে পারছে। সেতুর দুই প্রান্তের মোটরসাইকেল পার হচ্ছে ফেরিতে। সেতু দিয়ে পার হতে না পেরে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে ফেরির জন্য মোটরসাইকেল চালকদের অপেক্ষা। একই অপেক্ষা নাওডোবা ঘাটে।

বাইক চলাচল বন্ধ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আবুল হোসেন বলেন, গত রবিবার মোটরসাইকেল আরোহীদের কারণে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। এতে দুটি প্রাণ ঝরে। বাধ্য হয়ে সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ রাখতে হয়েছে। সেতু সংশ্লিষ্ট সব মহল মিলে এই সিদ্ধান্ত হয়েছে।

সোমবার সকাল থেকে পদ্মা সেতুর দুই প্রান্তে যানবাহনের জট নেই। ব্যক্তিগত গাড়ি, বাস ও পণ্যবাহী ট্রাক সরাসরি টোল দিয়ে সেতু পার হচ্ছে। তবে সকালে পদ্মা সেতু পার হতে না দেওয়ায় অনেক বাইকচালক ক্ষোভ প্রকাশ করেন। রাজধানীর উত্তরা থেকে আসা আবিদ হাসান বলেন, পদ্মা সেতুর সামনে সোমবার বেলা ১১টায় আসি। কিন্তু সেতুতে আমার বাইক ওঠতে দেয়নি। পরে ফেরিঘাটে যাই। সেখানে দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে ফেরি দিয়ে পার হয়ে আসি।

সেতুতে ওঠতে না পেরে ক্ষোভ নিয়ে বাসায় ফিরেন বাইক চালক নোমান। তিনি বলেন, থাকি ওয়ারিতে। মাদারিপুরে এক অসুস্থ স্বজনকে দেখতে যাওয়ার কথা। সময়ও বেশি নেই। এই সময়ের মধ্যে ভেবেছি সেতু যেহেতু অসুস্থ স্বজনকে দেখে তাড়াতাড়িই চলে আসা যাবে। কিন্তু সেতুতে ওঠতে দেয়নি। সেখানের দায়িত্বরত কর্মীরা ফেরিতে পারাপার হতে বলে। ফেরি ঘাটে গিয়ে দেখি র্দীঘ লাইন। পরে ঢাকায় চলে আসি।

গত শনিবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করলেন ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতুর। যার মধ্য দিয়ে জনগনের অবসান হলো দীর্ঘ প্রতীক্ষার। পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের পর পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে সেতুর ওপর উঠে পড়েন উৎসুক জনতা। লাল–সবুজের পতাকা নিয়ে বিজয় উল্লাসে মেতে ওঠেন তারা। মুখরিত হয়ে ওঠে ‘জয় বাংলা’, ‘জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগানে। পরে পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা সেতু থেকে সাধারণ মানুষকে সরিয়ে দেয়। সেতু উদ্বোধন পরদিন গত রবিবার ভোর ৬টা থেকে পদ্মা সেতু দিয়ে সব ধরনের যান চলাচল শুরু হয়। এক বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি কারনে দুটি প্রাণ ঝরে যায়, পরে ওইদিন রাতে পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল অনির্দিষ্টকালের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করে সরকার। পরবর্তী আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ থাকবে।

মূলত, বিশ্বের সবচেয়ে ভাঙন প্রবণ নদী পদ্মা। প্রতিবছর প্রবল ভাঙনে শত শত একর ফসলি জমি আর ঘরবাড়ি গিলে ফেলে পদ্মা। ভয় আর আতঙ্ক নিয়েই দিন কাটে পদ্মাপাড়ের জনপদের মানুষের। সেজন্যই পদ্মার আরেক নাম রাক্ষুসে নদী। যুগ যুগ ধরে পদ্মার সর্বগ্রাসী সেই রূপ দেখে এসেছেন পাড়ের মানুষ। এবারই প্রথম পদ্মার বুকে গৌরব আর অহংকার নিয়ে দাড়ানো পদ্মা সেতুর উপর থেকে পদ্মা নদীকে দেখলেন সাধারণ মানুষ। দেখলেন, সর্বনাশা পদ্মা যেন অসহায় হয়ে তাকিয়ে রয়েছে উল্লাসে মেতে ওঠা সাধারণ মানুষের দিকে।

মন্তব্য করুন






আর্কাইভ